যে উপায়ে দ্রুত কমে দাঁত ব্যথা!

tea_34523_1482381699

চেহারা যত সুন্দরই হোক না কেন, আপনার দাঁত যদি সুন্দর না হয় তাহলে আপনাকে আকর্ষণীয় দেখাবে না।হাসতে বা কথা বলতে গিয়ে দাঁত হলুদ, ভাঙা, ফাঁকা, মুখে দুর্গন্ধ, কালো দাগযুক্ত দাঁত দেখে প্রেমিকাও আপনাকে না করে দিতে পারে!ঝকঝকে দাঁতে সুন্দর হাসি কেবল আপনার ব্যক্তিত্বই বাড়ায় না, এটা আপনার সুস্বাস্থ্যেরও পরিচায়ক। কিন্তু দুঃখজনক হলেও সত্যি যে অনেকেই দাঁত নিয়ে অবহেলা করেন।

Loading...

বিশেষজ্ঞদের মতে, দাঁতের ক্ষয় রোধ, দাঁত ব্যথার অন্যতম কারণ হল ক্যারিজ বা দন্তক্ষয়। দাঁতের সব রোগের মধ্যে এটাই সবচেয়ে বেশি হয়ে থাকে।

বর্তমানে দাঁত ক্ষয় ও দাঁতে ছিদ্র হওয়া একটি সাধারণ সমস্যা হয়ে দাঁড়িয়েছে। সাধারণত শিশু, টিনএজার ও বয়স্কদের এই সমস্যাটি বেশি দেখা যায়। ব্যকটেরিয়ার সংক্রমণের ফলেই দাঁত ক্ষয় হয়ে থাকে।

এছাড়া, ঘন ঘন স্ন্যাক্স ও ড্রিঙ্কস খাওয়া, অনেকক্ষণ ধরে দাঁতের মধ্যে খাবার লেগে থাকা, ফ্লোরাইডের অপর্যাপ্ততা, মুখ ড্রাই থাকা, মুখের স্বাস্থ্যবিধি না মানা, পুষ্টির ঘাটতি, ক্ষুধামন্দার সমস্যার কারণে দাঁতে ছিদ্র ও ক্ষয় হয়ে থাকে।

দাঁতে ছিদ্র ও ক্ষয় হলে কোনও কিছু খাওয়া বা পান করার সময় হালকা থেকে তীব্র ব্যথা হয়। আক্রান্ত দাঁতে গর্ত দেখা যায় এবং দাঁতের উপরে সাদা, কালো বা বাদামী দাগ দেখা যায়।

দাঁতে পাথর জমলে ফিলিং করা হয়, ক্যাপ পরানো হয় এবং দাঁতের অবস্থা খুব খারাপ হলে রুট ক্যানেলও করা হয়ে থাকে। তবে এসব চিকিৎসা খুব ব্যয়বহুল ও সময়ের ব্যপার।

এতো গভীরে না গিয়ে ঘরোয়া কিছু উপায়ে আপনি দাঁত ব্যথা কমাতে পারেন। নিম্নে সেই ঘরোয়া উপায়গুলো আলোচনা করা হল :

হলুদ গুঁড়া : হলুদ গুঁড়ায় ও পানি মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এটি আস্তে আস্তে ব্যথার দাঁতে লাগান।

হলুদে ব্যাকটেরিয়া ধ্বংসকারী উপাদান আছে যা দাঁতের ছিদ্র সারাতে পারে। এটি দাঁতের ব্যাকটেরিয়ার ইনফেকশন ধ্বংস করে এবং এর প্রদাহরোধী উপাদান দাঁতের ব্যথা উপশম করতে পারে।

লবণ : ১ গ্লাস কুসুম গরম পানিতে ১ টেবিল চামুচ লবণ মিশিয়ে মুখে নিয়ে ১ মিনিট রাখুন।এভাবে দিনে ৩ বার করে গুলি করুন ব্যথা কমে যায়। এ ছাড়াও ১ টেবিল চামুচ লবণ অল্প সরিষার তেলের সঙ্গে অথবা লেবুর রসের সঙ্গে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করে মাড়িতে ম্যাসাজ করুন কয়েক মিনিট। তারপর কুসুম গরম পানি দিয়ে কুলি করে নিন। এভাবে ব্যাকটেরিয়া ধ্বংস হবে।

লবণে অ্যান্টিসেপ্টিক ও অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল উপাদান আছে। এটি মুখের ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি ব্যাহত করে প্রদাহ কমায়।

পেঁয়াজ : পেঁয়াজের একটি স্লাইস আক্রান্ত দাঁতের উপরে চেপে রাখুন দাঁতের ব্যাথা কমে যাবে। নিয়মিত পেঁয়াজ খেলে দাঁতের ক্ষয় রোধ হয়।

এছাড়াও বেকিং সোডা, অ্যালোভেরা, লবঙ্গ, রসুন, পুদিনা, আপেল সিডার ভিনেগার ইত্যাদি ব্যবহার করেও ব্যাকটেরিয়াল ইনফেকশন ও দাঁত ব্যথা কমানো যায়।